ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯ | ০৪ : ১০ মিনিট

মাহফুজ কাদরীমফস্বলের গণ্ডিতে বড় হওয়া একজন ছেলে নিজেকে নৃত্যশিল্পী দাবী করাও যেন এক প্রকার অন্যায়।  বাধা শুধু মৌলবাদী কিংবা চারপাশের মানুষরাই দেয় না পাশাপাশি পরিবারও চাইনি যে একজন নৃত্যশিল্পী হিসাবে প্রতিষ্ঠা হোক। এমন বাধা বিপত্তির সহ্য করে এগিয়ে যাচ্ছে স্বপ্নকে ছুঁতে।

ছোট বেলায় যখন টেলিভিশন এ সাদিয়া ইসলাম মৌ এর নাচ দেখাতো তখন তাকে টিভির সামনে থেকে কেউ সরাতে পারতো না।

তার বয়সী আর ৫টা বাচ্চা যখন কার্টুন দেখার জন্য প্রবল আগ্রহ নিয়ে বসে থাকতো সেই বয়স থেকেই সে একটা নাচের প্রোগ্রাম দেখার অপেক্ষায় থাকতো।

মাহফুজ কাদরীচাঁদপুরের এক সম্রান্ত মুসলিম পরিবারের জন্ম মাহফুজ কাদরী। বাবা মোস্তফা কাদরী ও মা আক্তারুন নাহার দুইজনই পেশাগত জীবনে চাকুরীজীবী। তাদের বড় সন্তান মাহফুজ কাদরী এবং তার ছোট  সুমাইয়া কাদরী। যৌথ পরিবারেই বেড়ে উঠেছেন,  পরিবারের সকল সদস্যদের ভালোবাসা আর আদর নিয়ে তার  পথচলা।  কিন্তু তার নাচের প্রতি প্রবল আগ্রহটাই অনেকেই ভালো চোখে দেখতেন না। তারপর কখনোই থেমে যায়নি, বাধা আর মানুষের আড় চোখের চাহনিকে। বরং পেয়েছে অনুপ্রেরণা।

নাচের শুরুটা ছিল চাঁদপুর শিল্পকলা একাডেমির সোমা দত্তের কাছ থেকে।  তারপর এই ভালোবাসার যাত্রাটা ধীরে ধীরে আরও এগিয়ে চলে বাংলাদেশের সনামধন্য ধ্রুপদী নৃত্যশিল্পী শিবলী মুহাম্মাদের কাছে কত্থক নৃত্যের তালিম নিয়ে মাহফুজ কাদরী।

তাছাড়াও বাংলাদেশ মেধাবী নৃত্য পরিচালক মোত্তাকিনুর রহমান ওয়াসেক ও নৃত্যগুরু সফিকুর রহমানের কাছে সৃজনশীল নৃত্য ও লোকনৃত্যের তালিম নিয়েছেন। পাশাপাশি নিজেও যুক্ত রয়েছেন লিওযম সহ নানান সামাজিক কর্মকান্ডে।

13তার প্রতিষ্ঠিত নৃত্যসংগঠন নৃত্যাঞ্জলি পারফর্মিং আর্টস নিয়ে সে এখন অংশ নিয়েছেন বিভিন্ন জমকালো  ইভেন্ট এ। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে স্কলারসিপ নিয়ে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ক্যালচার ক্লাবের একজন প্রতিনিধি নৃত্যশিল্পী হয়ে অংশ নিয়েছেল ভারতের চেন্নাই এ অবস্থিত ভ্যালোর ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজির রিভেরা কালচার ফেস্টিভ্যাল এ।

ড্যাফোডিল ক্যালচার ক্লাবের ডান্স সুপারভাইসর হিসাবেও তিনি কাজ করে আসছেন।  তাছাড়াও বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রসিদ্ধ  তারকা ও নৃত্যশিল্পীদের পরিচালনায় কাজ করেছেন ও তাদের সান্নিধ্য পেয়েছেন তিনি।

তার মধ্যে জিন্নাত বরকতুল্লাহ, সাদি মুহম্মদ,সাদিয়া ইসলাম মৌ, মেহের আফরোজ শাওন, ফারহানা চৌধুরী বেবি, ফারহানা খান তান্না, সেলিনা হক, সুলতানা হায়দার,লিখন রয়, ইভান শাহরিয়ার সোহাগ, মেহবুবা মেহনুর চাঁদনী সহ অনেকেই তাকে অনেক ভালোবাসেন।  যেই ভালবাসার শক্তিকে সঞ্চার করে তার পথচলা আরো দৃঢ় হয়েছে।

নৃত্যচর্চার পাশাপাশি সে নিজের মধ্যে একটু একটু করে লিডারশিপকে ধারণ করেছেন।

এখন তিনি রোটারি ক্লাব, লায়ন্স ক্লাবসহ বিভিন্ন প্রসিদ্ধ সাংস্কৃতিক আয়োজনের অংশ হিসাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন। বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ বেসরকারি টেলিভিশন এ নিয়মিত নাচের অনুষ্ঠান এ অংশ নিয়েছেন।

লেখাপড়ার পাশাপাশি নাচ নিয়ে তার বহুদূর চলার যাত্রায় তার ফুপি আইনুন্নার কাদরী, প্রিয়জন আরিফ হোসেন শামীম ও নাফিজা রহমান মৌসহ অনেকেই পাশে থেকে অনুপ্রেরণা দিয়ে গেছেন। ভালবাসার জায়গা নাচকে ভালবেসে আরো বহুদূর যাওয়ার আত্মপ্রত্যয় রাখেন তিনি।।

Comments

comments