ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ০৩ : ০৬ মিনিট

৫ অক্টোবর ছিল বিশ্ব শিক্ষক দিবস। প্রত্যেক শিক্ষকের প্রতি জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা, ভালোবাসা। শিক্ষক দিবসে প্রিয় শিক্ষক নিয়ে লিখেছেন মুসাররাত আবির জাহিন

IMG_0078 copyআমার ১০ বছরের স্কুলজীবনে অসংখ্য অসাধারণ শিক্ষকমন্ডলীর সান্নিধ্য লাভ করেছি। কাকে ছেড়ে কার কথা বলবো তা বলাই মুশকিল! তবে যদি একজনের নাম নিতে হয়, তাহলে আমি বলব আমার অন্যতম প্রিয় শিক্ষক শাবনাজ কামাল আপার কথা। আপা অষ্টম শ্রেণি থেকে আমাদের ইংরেজি ক্লাস নিলেও, আপাকে বেশি কাছে পাই দশম শ্রেণিতে থাকতে, তখন তিনি ছিলেন আমার শ্রেণিশিক্ষিকা।

শিক্ষক যদি হয় পিতৃতুল্য, তাহলে শিক্ষিকা হবেন মাতৃতুল্য। আর শাবনাজ আপাকে দেখলেই কেন জানি মায়ের মতো হয়। আর আপা যখন পড়াতেন, তখন শুধু মনে হতো-আপার কথাই বার বার শুনি। আপা সবসময় আমাদেরকে বলতেন-‘আমরা যাতে একজন ভালো মানুষ হই, একটি ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে স্কুলের নাম উজ্জ্বল করি৷’

আমি কখনোই এতো ধৈর্য নিয়ে কোনো শিক্ষককে পড়াতে দেখিনি৷ তাঁর কথা বলার স্টাইল, বাচনভঙ্গি, ব্যক্তিত্ব- সবই অনুকরণীয়।

স্কুল জীবনের শেষ ক্লাসে আমরা আপার জন্য খুবই কান্না করেছি। কারণ আপাকে ছেড়ে আসতে একদমই মন চাচ্ছিলো না। তবুও যেতে তো হবেই।

যেদিন আমার এসএসসির ফলাফল বের হলো। তা শুনে আপা কতটা যে খুশি হয়েছিল তা লিখে বুঝাতে পারব না। তিনি সেদিন আমাকে পরম সোহাগে জড়িয়ে ধরেছিলেন। সেইদিনে কথা কখনো ভুলার নয়। এখন কলেজে পড়ি। তবুও আপার সেই মিষ্টি হাসি যেন প্রতিনিয়ত দেখি।  ভুলতে পারি না। তাই তো যখনই সুযোগ পাই, চট করে আপার সঙ্গে দেখা করে আসি।

 

Comments

comments