ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮ | ০৪ : ১৪ মিনিট

May 22nd, 2018

rakorna_Swapno71গভীর লাল মখমলের বিছানায় ঘুমিয়ে রাজকন্যা। পাতলা নীল পোশাক জড়ানো গায়ে, কোমল এক বাহু ভাঁজ হয়ে বুকের ওপর লুটিয়ে আছে হাত, অন্য বাহু গায়ের পাশে এলিয়ে পড়ে। ছোট্ট কপাল, গালে হালকা গোলাপি আভা চোখে পড়ে কি পড়ে না, নরম ফোলা ফোলা ঠোঁটজোড়ায় ঘুমের মাঝেও যেন জড়িয়ে আছে রাজ্যের অভিমান। ঘন চোখের পাঁপড়ি গালে ছায়া ফেলেছে, বালিশময় ছড়ানো থোকা থোকা সোনালি রেশম চুল, ধীর নিঃশ্বাসে ওঠানামা করছে বুক।

কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে আসা দৃপ্ত রাজপুত্রের চোখে এখন আবেশ, মুখে মুগ্ধতার ছায়া গাঢ়।

আস্তে আস্তে হাঁটু গেড়ে বিছানার পাশে বসল রাজপুত্র। মাথা ঝোঁকাল। তারপর রাজকন্যার ঠোঁটে ঠোঁট স্পর্শ করল।

রাজকন্যা কেঁপে উঠেছে। একবার। দু’বার। খুলে গেল চোখজোড়া। অতলান্তিক সমুদ্রের সবটুকু গাঢ় নীল মণিজোড়ায় জমানো যেন।

তার নরম হাত মুঠোয় নিয়ে রাজপুত্র মৃদু স্বরে বলল, ‘একশ’ বছর পর, রাজকন্যা, তোমাকে উদ্ধার’…

‘একশ’ বছর?’ রাজপুত্রের কথা রয়ে গেল মুখেই। রাজকন্যার নিখুঁত ভ্রূ-জোড়া বেঁকে গেছে। চোখভর্তি বিরক্তি।

-‘এক হাজার বছর পরের এলার্ম দিয়েছিলাম আমি, জানো? মাত্র ঘুমিয়েছি কি ঘুমাই নি, আর তুমি…? এখন আবার ঘুম আসবে আমার? অসহ্য! সরো তো, যাও!’

রাজপুত্রকে ঠেলা দিয়ে পাশ ফিরে গুটিসুটি পাকিয়ে ঘুমাতে গেল রাজকন্যা।

Comments

comments