ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ১০ : ৪৫ মিনিট

Untitled-1 copyমেডিকেলের ছাত্রী জিম। বাবা মায়ের ইচ্ছেই মেডিকেলে ভর্তি হয়। কিন্তু ওর একদমই ভালো লাগল তো না। তার চোখে মুখে ভাসতো একদিন সেই বড় গায়ক হবে। বাবা মায়ের ইচ্ছার কাছে নিজের ইচ্ছে পরাস্ত হয়ে ভর্তি হয় মেডিকেল কলেজে।

পরিবেশটা কেমন জানি ওর খাপছাড়া লাগছিল। কিছুতেই মেনে নিতে পারছিল না। এই পরিবেশে পরীক্ষার প্রেসার শুরু হয়ে গেল। বন্ধু জূটেনি এখনও তার। কী আর করবে? কাকে সেই খুলে বলবে তার সব হতাশার কথা,স্বপ্নের কথা।খুব একা একা লাগতো। কান্নাকাটি করত। আর ওদিকে একটার পর একটা পরীক্ষার বোঝা বেড়েই যাচ্ছিলো। হতাশা আর হতাশা।

একদিন খুব জিদ হলো। সমস্ত হতাশা শরীর থেকে ঝেরে দিয়ে উঠে বসে জিম। আর নিজে নিজে বলতে লাগে-‘আর হতাশা নয়। এর রাহু থেকে বের হতেই হবে।’ নির্ঘুম রাত।চারপাশটা চুপচাপ।বিড়বিড় করে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করে বলে, আল্লাহ তুমি আমার স্বপ্নটা পূরর্ণ কর।’

কঠিন সাধনা,ত্যাগ স্বীকার শুরু করে আরেক সংগ্রাম।তারপর ধীরে ধীরে সেই স্বপ্ন পূরণ হতে লাগে।
জানতে পারে, আগামী ২০ মার্চ এমবিবিএস পরীক্ষার রেজাল্ট দিবে। মা-বাবাকে না জানিয়ে কলেজে যায়। সেখানে রেজাল্ট ঘোষণা করা হলো । সেই রেজাল্ট পেয়ে মায়ের কাছে এসে চিৎকারে করে বলে-মা আমি ডাক্তার হয়েছি..’

 লেখক : চিকিৎসক, পপুলার মেডিকেল কলেজ, ঢাকা।

Comments

comments