ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮ | ০৪ : ১৮ মিনিট

swapno71_shahin samad_1স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের দুই শিল্পী শাহীন সামাদ ও তপন মাহমুদকে শব্দসৈনিক সম্মাননা দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সংগঠন মুক্ত আসর ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। ৪ ডিসেম্বর, সোমবার বেলা্ তিনটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭১ মিলনায়তনে ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে বলছি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে শিল্পীদের হাতে এ সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক শিল্পীদের সম্মাননা স্মারক প্রদান করেন এবং উত্তরীয় পরিয়ে দেন।

sapno71_topon Mahamud_2অনুষ্ঠানে আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘চট্টগ্রামে যে কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রটি ছিল। ছোট বেতার কেন্দ্রে সব জিনিস নিয়ে বেলাল মোহাম্মাদের নেতৃত্বে কলকাতায় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে চালু করেন। ছোট দুটা রুমে শিল্পীরা থাকতেন। একটা রুমে বোনেরা মায়েরা আর একটা রুমে ছেলেরা। বিশ্বাস করা যায় না। গাদাগাদী করে থাকতেন। দাঁড়ানো জায়গা নেই। অনেকেই আছেন এক সপ্তাহ পর্যন্ত গোসলও করতে পারিনি। আপনার শুনেছেন খাবার দাবারের কি কষ্ট করতে হয়েছিল। শুধু তাদের নয়। সারা জাতিকে এমন কষ্ট করতে হয়েছে। সেইদিন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ন অনুষ্ঠান প্রচার করা হতো। তার মধ্যে সংগীত। সংগীতের যে কত বেশি শক্তি। মহান মুক্তিযোদ্ধাদের সময় Swapno71_Muzamel Haq_3সেটা আমরা উপলব্ধি করতেছি। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে যে সমস্ত বিপ্লবী গান বাজানো হতো শুনে যারা অবরুদ্ধ ছিল। সবাই শঙ্খিত ছিল। অনিশ্চিয়তা মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। তখন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র অনুষ্ঠান শুনার জন্য হুমরি খেয়ে পড়ে থাকতো। সেখানে গানগুলো শরীরে রক্ত গরম হয়ে উঠতো। এখনও শিহরণ জাগো। আমরা যারা মুক্তিযুদ্ধের জন্য ট্রেনিং নিতাম সেই সময়ে স্বাধীন বাংলা বেতারে কথা শুনে কী পরিমাণ অনুপ্রেরণা হতাম তা বুঝাতে পারবো না। এম আর আখতার মুকুলের চরমপত্র যার আমাদের অনেক উদজীবিত করতো। আমি মনে করে বেতার একাই যুদ্ধ করেছে। আমরা মুক্তিযোদ্ধারা যতটুকু যুদ্ধ করেছি, যত পরিমাণ যুদ্ধ আমাদের বেতার কেন্দ্রে শিল্পী যুদ্ধ করেছে।’

Swapno71_DIU_4

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীদের মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি ছিল না উল্লেখ করে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়ার পর তাঁদের স্বীকৃতির ব্যবস্থা করেছি। শুধু তা-ই নয়, মুক্তিযুদ্ধের সময় যাঁরা অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করেননি, কিন্তু বিভিন্নভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন, সেবা করেছেন এবং সর্বোপরি মুক্তিযুদ্ধে অবদান রেখেছেন, সবাইকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘আমার জীবনে অহংকার করার মতো দুটি ঘটনা রয়েছে। একটি ১৯৭১ সালে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করা এবং অপর হচ্ছে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া।’

Swapno71_mukto Asor_5অনুষ্ঠানের শিল্পী শাহীন সামাদ ‘জনতার সংগ্রাম চলবেই’ গানটি এবং তপন মাহমুদ ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে’ গানটি গেয়ে শোনান।

Swapno71_DiU_6অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য  অধ্যাপক ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম। বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ হামিদুল হক খান, মুক্ত আসরের উপদেষ্টা রাশেদুর রহমান, প্রতিষ্ঠাতা  ও সভাপতি আবু সাঈদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন আশফাকুজ্জামান ও নাফিজা রহমান মৌ।

Swapno71_Full_7পরে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কালচারাল ক্লাবের সদস্যদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কালচারাল ক্লাবের সদস্যদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কালচারাল ক্লাবের সদস্যদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

 

 

 

Swapno71_Fist_9

Swapno71_muktoAsot_8

Comments

comments