ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮ | ০৯ : ০৪ মিনিট

ছবি : ফেসবুকের সৌজনে

ছবি : ফেসবুকের সৌজন্যে

বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা, রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ-মাহবুব) আহ্বায়ক আ ফ ম মাহবুবুল হক আর নেই। আজ শুক্রবার বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে কানাডার রাজধানী অটোয়ার সিভিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। (ইন্নালিল্লাহ…রাজিউন) । তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর।

আ ফ ম মাহবুবুল হকের অকাল মৃত্যুতে বাসদের পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়েছে। বাসদের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘কমরেড আ ফ ম মাহবুবুল হক ছিলেন শোষণমুক্ত সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্টার স্বপ্নদ্রষ্টা। বিপ্লবী রাজনীতিতে তার আপসহীন লড়াই এ দেশের বামপন্থি নেতাদের অনাদিকাল পথ দেখাবে। সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অজন্ম সেনানি এই বীর যোদ্ধার মৃত্যুতে দেশের বাম আন্দোলনের অপূরণীয় ক্ষতি হলো।’
আপসহীন সাবেক এই ছাত্রনেতা ১৯৪৮ সালের ২৫ ডিসেম্বর নোয়াখালী জেলার চাটখিল উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ফজলুল হক ও মা মরিয়ামেন নেছা। ১৯৬২ সালে স্কুল জীবন থেকে শুরু হয় ছাত্র আন্দোলন। সেই সময়েই শরীফ কমিশনের প্রতিক্রিয়াশীল শিক্ষানীতি বিরোধী ছাত্র আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। সেখানে তিনি পুলিশের নির্যাতনের শিকার হন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি  হলেও থেমে থাকেননি তিনি। ১৯৬৭-৬৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ সূর্যসেন হল শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে শুরু করেন। ৬৮-৬৯ সালে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য, ’৬৯-৭০ সালে কেন্দ্রীয় সহসম্পাদকের হিসেবে তিনি সক্রিয় ছিলেন।

দেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলো তিনি বি এল এফ’র অন্যতম প্রশিক্ষক ও পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ’৭৩-’৭৮ পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৭৮-৮০ সালে ‘জাসদ’ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ১৯৮০ সালের শেষের দিকে ‘বাসদের’ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হন।

আ ফ ম মাহবুবুল হক ১৯৮৩ সালে বাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক নিযুক্ত হন। সূত্র : নতুন দেশ।

Comments

comments