ঢাকা, বৃহষ্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ০৬ : ৫৪ মিনিট

:: রিয়ানা রিম্পা ::
…………………………….

দেশিয় দর্শকদের মনোযোগ আকর্ষণে ব্যর্থ হওয়া কোন নিছক দূর্ঘটনা বা কাল্পনিক অভিযোগ নয়। বাস্তবেই মানুষ ত্যাক্ত বিরক্ত এবং হতাশ হয়ে দেশিয় চ্যানেল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছে। বিনোদনের জন্য টিভি দেখতে বসে যদি বিব্রত আর বিরক্তির কারণ ঘটে তাহলে দেশীয় টিভির প্রতি মনোযোগ বা আকর্ষণ থাকবে কি ভাবে?

এই বিষয় নিয়ে চিন্তা এবং গবেষণা করে দেখা জরুরি,কেন আমরা ব্যর্থ।দর্শকদের দেশীয় অনুষ্ঠান থেকে মনোযোগ সরে যাবার পিছনে অন্যতম কারণ হচ্ছে ঠিকভাবে অনুষ্ঠান সূচি প্রচার না করা। দর্শক ঠিক মতো জানতেই পারে না।

তারমধ্যে গোদের উপর বিষ ফোঁড়ের মতো বিজ্ঞাপন বিড়ম্বনা।বলা হয় আগে অনুষ্ঠানের ফাঁকেফাঁকে বিজ্ঞাপন প্রচার হত,এখন নাকি বিজ্ঞাপনের ফাঁকেফাঁকে অনুষ্ঠান প্রচার হয়।দেশীয চ্যানেলগুলিতে একটি নাটক প্রচার সময় সপ্তাহে তিনদিন বা চারদিন কিন্তু যথাযথভাবে নাটকের সময়সূচি প্রচার না করার ফলে দর্শকের জন্য তা মনে রাখা কষ্টকর হয়ে পরে।

সপ্তাহের কোন কোন দিনে কোন সময়ে তারা পছন্দ করা নাটকটি দেখেছেন তা মনে রাখা কঠিন হয়ে পড়ে।যদিওবা কেউ নাটক বা অনুষ্ঠানের সময় মনে রেখে প্রোগ্রাম দেখেন,সেখানে বাধা হয়ে দাঁড়ায় বিজ্ঞাপন।অনুষ্ঠান শুরুর আগে এবং মাঝে এত সূদীর্ঘ বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়-যে,দর্শকরা প্রোগ্রামগুলি দেখার মনোযোগ হারিয়ে ফেলেন।অন্যদিকে ভারতীয় চ্যানেলগুলি দর্শকের মনোযোগ আকর্ষণে সফল হবার মূলমন্ত্র হলো তারা প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে তাদের প্রোগ্রামগুলি প্রচার করে।তাদের অনুষ্ঠান চলাকালীন সময়ে অল্প সংখ্যক বিজ্ঞাপন প্রচারের সাথে সাথে অন্য অনুষ্ঠানগুলির সময়সূচিও বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়।

আমাদের দেশিয় চ্যানেলে দেশিয় সংস্কৃতির ধারায় অনুষ্ঠান তৈরি না করে নকল বা কপি করা ঘটনা থেকে অনুষ্ঠান নির্মাণ করা হয়।অনভিজ্ঞ অভিনেতা ও অভিনেত্রীর নিম্নমানের অনুষ্ঠান প্রচারের ক্রমবর্ধমান সংখ্যাও দর্শক অনাগ্রহ সৃষ্টির অন্যতম কারণ বলা যায়।ভিন্ন ভিন্ন লোগো ও নামের চ্যানেল হলেও সব চ্যানেলে একই ধরণের বৈচিত্র্যহীন দায়সারা গোছের প্রোগ্রামের প্রচার দর্শকের কাছে এলার্জিক হয়ে উঠেছে।

বিষয়ভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেলে সম্প্রচার না হওয়া দেশিয় চ্যানেলগুলির আরো একটি বড় দুর্বলতা।বয়সভিত্তিক অনুষ্ঠান প্রচার না করাও দর্শক রুচি ও চাহিদাকে এক ধরণের অগ্রহ্য করার লক্ষণ।দর্শকের পছন্দ-অপছন্দের উপর গুরুত্ব দিতেই হবে।এটা সম্ভব হয়নি বলেই চ্যানেল আছে,অনুষ্ঠান আছে কিন্তু দর্শক নেই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।যাদের উদ্দেশ্যে সম্প্রচার কার্যক্রম, তাদের প্রয়োজন, চাহিদা আর আগ্রহ বোঝার চেষ্টা করতেই হবে।যারা দেখবে তারা যদি মজা না পেয়ে বিরক্তবোধ করে তাহলে দর্শক দেশিয় চ্যানেল দেখবে কেন? সমালোচনা নয় বরং বস্তুনিষ্ঠ পর্যালোচনা হচ্ছে,দেশিয় চ্যানেলগুলোর অনুষ্ঠানের মান উন্নয়নে অমনোযোগ,সম্প্রচারের বিষয়গুলি ঠিকভাবে দর্শকদের অবগত না করা এবং বিজ্ঞাপন পরিবেশনের বিরক্তিকর বিষয়টি সহনশীল পর্যায় নামিয়ে আনার ব্যবস্থা করতে পারছেনা বলেই দেশের মানুষ বিদেশের চ্যানেলগুলির দিকে ঝুকে পরছে।

এ জন্য দর্শকদের দায়ী করা যাবে না বরং দর্শকদের মনোযোগ আকর্ষণে ব্যর্থতার দায় দেশিয় চ্যানেলগুলিকেই বহন করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে,দেশি শিল্পপণ্যের মান অনুন্নত হওয়ার কারণেই বিদেশী পণ্যের দিকে মানুষের আকর্ষণ বেশি হয়, একইভাবে দেশি চ্যানেলগুলির মান উন্নয়নে ব্যর্থতার জন্যই দর্শকরা ভারতীয় চ্যানেলগুলির দিকে ঝুকে পরেছে।দায়সারা গোছের অনুষ্ঠান, গোঁজামিল দিয়ে সময় পার করার দিন শেষ হয়ে গেছে।দর্শক আকর্ষণ বাড়াতে চাইলে অনুষ্ঠানে বৈচিত্র‍্যতা আনতে হবে,নির্মল আনন্দ ও বিনোদনের উপযোগী নিত্য-নতুন অনুষ্ঠান মালা উপহার দিতে হবে।

এজন্য চিন্তা,গবেষণা,পরিকল্পনা,দক্ষ প্রযোজক, অভিজ্ঞ উপস্থাপক, ভালো ভালো শিল্পী তৈরির উদ্যোগ নিতে হবে।ধরলাম আর করলাম,চাইলাম আর পাইলাম,এমনটা ভাবার সময় পার হয়ে গেছে।এখন প্রতিযোগিতার যুগ।টিকে থাকতে হলে উন্নতমানের পরিবেশনা দিয়ে যোগ্যতা ও দক্ষতা প্রমাণ করেই টিকে থাকতে হবে।মানুষের মন জয় করতে চাইলে মন ভরানোর মত খোরাক যোগান দিতে হবে।এক্ষেত্রে ফাঁকিজুঁকির কোন অবকাশ নেই।একটি অনুষ্ঠান ভালো না লাগলে মানুষ অপেক্ষা করে না,মুহূর্তে রিমোট কন্ট্রোল করে অন্য চ্যানেলে চলে যায়।যেখানে ভালো লাগে,যা ভালো মনে হয় মানুষ সেটাকেই গ্রহণ করে,সেটা দেশি হোক বা বিদেশি হোক,তাতে দর্শকের কোন যায় আসেনা।আমরা যেহেতু ভারতীয় চ্যানেলের সঙ্গে প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হয়েছি,সেহেতু আমাদের সেভাবেই প্রস্তুতি নিয়ে এগুতে হবে যাতে প্রতিটি ক্ষেত্রে আমাদের দর্শক ভারতীয় চ্যানেলের চাইতে দেশীয় অনুষ্ঠান দেখে বেশি আনন্দ পায়,বেশি উপভোগ্য মনে করে।আর এর জন্য যা যা করা দরকার গুরুত্ব দিয়ে মনোযোগের সঙ্গে তা করতে হবে।

আমাদের উপলব্ধি করতে হবে,সর্বক্ষেত্রে ভারতীয় চ্যানেলের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়াই আমাদের দর্শকদের দেশি চ্যানেল থেকে আকর্ষণ হারানোর প্রধান কারণ।তাই দর্শকের আকর্ষণ বাড়াতে আমাদের সকল দুর্বলতা, ভুল ও অক্ষমতা মুছে ফেলতে হবে।তাহলে নিশ্চয়ই আমাদের চ্যানেলগুলোর সচেতন পদক্ষেপ দেশিয় দর্শকের দেশিয় অনুষ্ঠানের দর্শক হিসেবে ফিরে পেতে বেগ পেতে হবেনা।অবসর মুহূর্তগুলো অনাবিল আনন্দে কাটাবার ব্যবস্থা করতে পারলেই দেশি চ্যানেলগুলোর আকর্ষণ ফিরে আসবে।

রিয়ানা রিম্পা : শিক্ষক

Comments

comments