ঢাকা, বৃহষ্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ০৬ : ১৮ মিনিট

1আমেরিকার লুইজিয়ানা অঙ্গরাজ্যে ‘আকাশলীনা’ বাংলা সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক অর্গানাইজেশনের আয়োজনে আকাশলীনা-‘দখিনের জানালায় বাংলার মুখ’-২০১৬ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বাঙালি জাতির স্বাতন্ত্র, বাংলা ভাষা, সংস্কৃতি, আবহমান ঐতিহ্যকে ভিন্ন মাত্রা দিয়েছে। পারস্পরিক বন্ধুত্ব ও ভালোবাসার বন্ধন আমাদের অনেক বেশি। হাজার হাজার মাইলের ব্যবধানে, এতোদূরে এই প্রবাসেও তার স্পর্শ আমাদের দেহে-মনে-প্রাণে এসে লাগে! সে স্পর্শ আর ছোঁয়াটুকুই আমাদের অনুপ্রেরণা। সে স্পর্শের চেতনাই আমাদেরকে উদ্দীপিত করে শত বাধা আর ব্যস্ততার মাঝেও কিছু একটা করার সবাইকে নিয়ে।
বাঙালির স্পর্শ ও আদর্শকে সামনে রেখেই আকাশলীনার আয়োজনে দখিনের জানালায় বাংলার মুখ-২০১৬ এবারের আয়োজন। এ বছর আইডাহো অঙ্গরাজ্য থেকে এ প্রজন্মের প্রতিশ্রুতিশীল ও আলোচিত কণ্ঠশিল্পী ‘আবীর আশফাকুর রহমান’ গান পরিবেশেন করেন। এর পাশাপাশি ছিল বাঙালির সংস্কৃতি ও কৃষ্টি নিয়ে  কবিতা, গান, নাচ, অভিনয় এবং আবহমান বাংলার কালচারাল প্রেসেন্টেশন ’৫২ থেকে ’৭১ এবং বর্তমান বাংলাদেশসহ বিভিন্ন প্রাণবন্ত শৈল্পিক পরিবেশনা।
2অনুষ্ঠানের শুরুতে আকাশলীনানের সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ ফেরদৌস শিবলীর স্বাগত বক্তব্যে দেন। আবীর রহমানের প্রথম পর্বের দেশাত্ববোধক গান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বাংলাদেশ তথা দেশপ্রেমের চেতনায় উজ্জীবিত হয় গোটা অনুষ্ঠান পরিবেশ! সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের বাংলাদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য-সংস্কৃতি নিয়ে বিভিন্ন কুইজ প্রশ্নের আয়োজন এবং বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ছিল আকর্ষণীয়। অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন খায়রুল হাবিব পুলক, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় থেকে আবৃত্তি করেন মাহিন আহমেদ এবং দ্বৈত কবিতা আবৃত্তিতে অংশ নেন সিরাজুম মুনিরা টিসা ও আবাদুল্লাহিল কাফি।
দেশাত্ববোধক গানের সঙ্গে নাচে অংশগ্রহণ করেন তাশফিয়া শেহজাবীন, রবীন্দ্র সঙ্গীতে তামান্না চ্যাটার্জী এবং লোকসঙ্গীতে  হৃদিতা জামান। কালচারাল প্রেসেন্টেশনে (বাংলার আবহমান সংস্কৃতি) অংশগ্রহণ করেন যথাক্রমে নওশীন মীম, মীর সালাউদ্দিন রবীন, আমির হোসেন, নুসরাত হোমায়রা মুমু , সাদ বিন আজিজ, এস এম আবিদ হাসান রায়হান জামিল, হাসান ফয়সাল, সঙ্গীতা, মানহা ও মাহিন আহমেদ।
3মনোমুগ্ধকর এ প্রেসেন্টেশনের ধারা বর্ণনায় ছিলেন মুহাম্মদ মিলন এবং অনবদ্য এই Cultural Presentation-এর কোরিওগ্রাফার ছিলেন তাসিয়া মেহ্জাবীন কাজী।  গান পরিবেশন করেন উজেশ, উন্মেষ ও বনানী চক্রবর্তী, নীলাম্বরী সোহানা, তাজরীন সুপ্তি ও জাবেদ রাসেল। মাহদি-রাহাত-রাজীবের যৌথ গান পরিবেশনা ছিল মনোমুগ্ধকর ও অসাধারণ!
অকাল প্রয়াত সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের বিখ্যাত মঞ্চনাটক ‘নুরুলদিনের সারাজীবন’ থেকে অংশবিশেষ পাঠ ও অভিনয় করেন জনপ্রিয় নাট্যাভিনেত্রী ড. শায়লা খান। তাঁর সৃজনশীল অভিনয় ও অনবদ্য উচ্চারণ “জাগো বাহে, কুন্‌ঠে সবাই” অনুষ্ঠানে নিঃসন্দেহে ভিন্ন মাত্রা যুক্ত করে। এছাড়াও বিজয়ের ৪৫ বছরকে সামনে রেখে প্রকাশ করা হয় কামরুন জিনিয়া সম্পাদিত ‘সাবাস, বাংলাদেশ’ নামে চমৎকার একটি স্যুভেনির।
বরাবরের মতো অনুষ্ঠানের বাংলাদেশের বিভিন্ন মুখরোচক খাবার, মিষ্টি, চা এবং পান-সুপারি পরিবেশন করা হয়। অনুষ্ঠানের শেষ অংশে প্রতিশ্রুতিশীল শিল্পী আবীর রহমানকে বিশেষ ‘সম্মাননা’  এবং অন্যান্য শিল্পী ও কলাকুশলীদের ‘পারফরমেন্স এ্যাওয়ার্ড মেডেল’ প্রদান করা হয়।
4বাঙালিদের হাজার বছরের সংস্কৃতির মান খুবই উঁচুতে! আর এ সংস্কৃতি সারা পৃথিবীতে বাঁচিয়ে রাখার ক্ষেত্রে প্রবাসী বাংলাদেশীদের ভূমিকা ও দায়িত্ব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ! একটি জাতির পরিচয় তার সংস্কৃতিতে, আর যুগ যুগ—শতবর্ষ ধরে যে সংস্কৃতির বীজ আমরা বহন করছি, তা শত বাধা-বিপত্তিতেও জাগ্রত হয়ে থাকবে আমাদের মনে—এই প্রবাসে, বা অন্য কোনো খানে, যতো দূরেই থাকি না কেন! সেই শেকড়ের সঙ্গে সংযোগ যেন কখনই বিচ্ছিন্ন না হয়।
5অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকতায় ছিলেন বাংলাদেশের অনারারী কনসাল জেনারেল থমাস বি কোলম্যান,  ফ্যাশন ইন্ডিয়ার চিকিৎসক জামাল উদ্দিন,পারভেজ ও শাবানা করিম এবং হাকিম শহীদুজ্জামান, আবদুল হাই, লীনা হাই, খালেদ ও জেসমিন কাদের, আজমীর, মিসেস আজমীর,মামুন ও মিসেস মামুন, রুবেল রহমান,  মিসেস সালমা, রাসেল করিম, রেহানা করিম, এনামুল, সালমা এনামুল, রিয়াজ ফেরদৌস শিবলী।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন  শামীম মোহাম্মদ মুরশিদ ও হাসান ফয়সাল।
কামরুন জিনিয়া, লুইজিয়ানা, ইউএসএ

Comments

comments