ঢাকা, বৃহষ্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ০৬ : ১৭ মিনিট

বিদ্যুৎ​বিহীন এলাকার মানুষকে স্বস্তি দিতে পারে এই প্রযুক্তি। ছবি: সংগৃহীত

বিদ্যুৎ​বিহীন এলাকার মানুষকে স্বস্তি দিতে পারে এই প্রযুক্তি। ছবি: সংগৃহীত

যা গরম পড়েছে। গরমে বাইরে বের হলে অস্বস্থি লাগে। আর অফিসে গেলে শান্তি লাগে। এসি বাতাসে কী শান্তি!
এ হলো আমােদের এখনকার সময়ের নিত্য দিনের গল্প। আর  মধ্যবিত্ত কিংবা দরিদ্র মানুষের পক্ষে তো এসি কেনা সাধ্যের বাইরে। এই গরমে অতিষ্ঠ মানুষকে বিনা খরচে শান্তির পরশ দিতে পারে অভাবনীয় উদ্ভাবক আশীষ পালে প্লাস্টিকের বোতল। শুনে মনে হলো ভ্রু কুচকে গেল? যাওয়ারই কথা। স্রেফ ফেলে দেওয়া বোতলকে কাজে লাগিয়েই ঘর ঠান্ডা রাখার দুর্দান্ত এক কৌশল উদ্ভাবন করেছেন রাজবাড়ির দৌলতাবাদের আশীষ পাল। এই প্রযুক্তি গ্রামে গ্রামে পৌছে দেওয়ার জন্য পরীক্ষামূলক কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালের মার্চ মাসে। আশীষ পালসহ ১৫ জনের একটি দল নীলফামারী জেলার একটি গ্রামে এই প্রকল্পে কাজ শুরু করে।

উদ্ভাবক আশীষ পাল বলছিলেন, ‘বিদ্যুৎ–চালিত শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের মতো এটি দ্রুত বা সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা কমাবে না। তবে ৫ ডিগ্রি তাপমাত্রাও যদি আমরা কমাতে পারি গরমে অতিষ্ঠ মানুষকে স্বস্তি দেওয়ার জন্য সেটিও কম কথা

বিদ্যুতের ব্যবহার ছাড়াই সম্পূর্ণ নিখরচায় এই কুলারের সৌজন্যেই এখন শান্তিতে ঘুমোচ্ছে ২৫,০০০ পরিবার। প্লাস্টিক বোতল ব্যবহার করে পরিবেশবান্ধব কুলাটির নাম দেওয়া হয়েছে ইকো কুলার।

কী ভাবে কাজ করে এই ইকো কুলার? দেখে নিন ভিডিওতে

Comments

comments