ঢাকা, রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ | ০৯ : ১৮ মিনিট

জাতীয় নাট্যশালায় পরিবেশিত ‘বাঁদি-বান্দার রূপকথা’ নৃত্যনাট্য একটি মুহূর্ত। ছবি : সংগৃহিত

জাতীয় নাট্যশালায় পরিবেশিত ‘বাঁদি-বান্দার রূপকথা’ নৃত্যনাট্য একটি মুহূর্ত। ছবি : সংগৃহিত

২৯ এপ্রিল বিশ্ব নৃত্যু দিবস। এই দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে শুরু হয়েছে নৃত্যুশিল্পীদের মিলনমেলা। চারপাশটা ঢাক-ঢোলের তালে তালে নৃত্য করে যাচ্ছেন নৃত্যশিল্পীরা। মূল একাডেমির চত্বরটা যেন তিনদিনের আয়োজনে সেজেছে আনন্দ উল্লাসে। নৃত্য সংগঠন ‘নৃত্যাঞ্চল’ আয়োজিত তিন দিনের এই ‘নৃত্য উৎসব’।
আজ উৎসবের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে মঞ্চস্থ হয় নৃত্যনাট্য ‘বাঁদি-বান্দার রূপকথা’। যার পরিকল্পনা ও পরিচালনা করেছেন সুকল্যাণ ভট্টাচার্য। নৃত্যের সঙ্গে থ্রি ডাইমেনশন প্রজেকশন এবং সেট ও প্রপসের অভিনব ব্যবহারে নৃত্যনাট্যটি পেয়েছে ভিন্নমাত্রা। মুগ্ধ করেছে দর্শকদের।

এমন সব বিষয়কে নাচের মুদ্রা ও অভিব্যক্তির সঙ্গে সংলাপ এবং গানের মেলবন্ধনে সাজানো হয়েছে নৃত্যনাট্যটি। সুরের সঙ্গে আলোকছটার সৌন্দর্যে উপস্থাপিত হয়েছে বাঁদি ও বান্দার অনবদ্য কল্পকাহিনি। আলীবাবার রাজদরবারে আগমন ঘটে চল্লিশ চোরের। রূপকথার নায়িকা ক্রীতদাসী বুদ্ধিমতী মর্জিনার কৌশলে ঘায়েল হয় চল্লিশ চোর। দস্যুদের কবল থেকে রক্ষা পায় রাজপ্রাসাদ। ঘটনার নানা পর্যায়ে উঠে আসে কাঠুরিয়া আলীবাবা, কাফ্রি বান্দা ক্রীতদাস আবদুল্লাহ, স্বার্থপর কাসেম, কেরামতি দেখানো মুস্তাফাসহ পরিচিত সব চরিত্র। মানুষের অন্তর্নিহিত লোভ, স্বার্থপরতা, হিংসা—সবকিছু জয় করে মানুষকে মানবিক করে তোলার কাহিনি উপস্থাপিত হয় নৃত্যনাট্য ‘বাঁদি-বান্দার রূপকথা’ গল্পে।
বাঁদি-বান্দার রূপকথায় বুদ্ধিমতী ক্রীতদাসী মর্জিনা ও আলীবাবার চরিত্র রূপায়ণ করেছেন নন্দিত নৃত্য জুটি শামীম আরা নীপা ও শিবলী মহম্মদ। অন্যান্য চরিত্রে ছিলেন আনিসুল ইসলাম, সুকল্যাণ ভট্টাচার্য, ডলি ইকবাল, সাবরিনা নিসা, আবুল হাসান তপন, রানা ওয়াদুদসহ ৭০ জন নৃত্যশিল্পী। বিভিন্ন চরিত্রে কণ্ঠ ও সুর দিয়েছেন অন্বেষা, ইন্দ্রাণী হালদার, শ্রীকান্ত আচার্য, নচিকেতা, লোপা মুদ্রা মিত্র, অরিজিত চক্রবর্তী, জয়তী চক্রবর্তী, মনোময় চক্রবর্তী, সুভজিৎ বকসি, রাঘব চ্যাটার্জি ও শংকর তালুকদার। সংগীত পরিচালনায় ছিলেন জয় সরকার।

কাল অনুষ্ঠানের শেষ দিনে নৃত্যাঞ্চলের শিল্পীরা সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করবেন।

Comments

comments